রাজাকারের তালিকায় শীর্ষে আওয়ামী লীগ !

আওয়ামী লীগ দলটি এমনই একটি দল এর জম্মই হয়ে ছিল অবৈধ দিয়ে যা আজ মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এতোই গান গায় মনে হয় আঃলীগই মুক্তিযুদ্ধ দল অথচ এ দলটিই সব চেয়ে বড় রাজাকারের দল। আঃলীগের শীর্ষ তালিকায় আছি যদি তাহলে সর্ব প্রথমে উঠে আসে শেখ মুজিবুর রহমানের নাম সহ তার ছেলে শেখ কামাল রাজাকারের তালিকায় অন্তভূক্ত। শেখের পরিবার কেহত মুক্তিযুদ্ধ করেই নাই বরং পাকিস্তানের মাসিক বাতা নিত নিয়ম মতো এবং শেখ মজিবুর রহমান কখনও বাংলাদেশের স্বাধীনতা চায়নীই সে চেয়ে ছিল পৃর্ব পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী তাহলে রাজাকার কে??১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তান বাহিনীর সহযোগী হিসেবে কাজ করেছে, এমন অভিযোগে বিরোধীজোট বিএনপি ও জামায়াতরে নেতাদের বিচার করছে রাজাকারের দল আওয়ামী লীগ। তারা নিজেদের মুক্তিযুদ্ধের কথিত স্বপক্ষ শক্তি দাবি করে অথচয় শেখ মজিবুর রহমান সহ শেখ কামাল রাজাকারের নামে তালিকায়ও নম্মর ওয়ান অথচয় আওয়ামী লীগের থাকা রাজাকারদের ব্যাপারে একেবারে নিরব কি কারনে এ নিরব?? এদলটিতেও রয়েছে, কুখ্যাত রাজাকার, আল বদর, আল শামস, গণহত্যকারী, গণধর্ষণকারী, অগ্নিসংযোগাকরীসহ অসংখ্য স্বাধীনতাবিরোধী। আওয়ামী লীগের নেতারা বিভিন্ন সময় বক্তৃতায় বলেছেন, আওয়ামী লীগে রাজাকার থাকলে দেখিয়ে দেন-আমরা তাদের বিচার করব। আমাদের অনুসন্ধানে নিচে ৪৬জন আওয়ামী লীগের রাজাকারের তালিকা তুলে ধরা হলো এবং বিস্তারীত।

আওয়ামী লীগের এই ৪৬ জন যুদ্ধাপরাধী তাদের পরিবার কোন না কোনভাবে ৭১ সালে পাকিস্তান সরকার ও যুদ্ধাপরাধের সাথে জড়িত ছিলেন।১৯৭১ সালে মক্তিযোদ্বাদের হত্যাসহ নানা ধরনের মানবতবিরোধী অপরাধের সঙ্গে তারা যুক্ত ছিলেন তারা।

SHARE