রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ থেকে নিম্নস্তর পর্যন্ত দুর্নীতির প্রতিযোগিতা চলছে’

বালিশকাণ্ডের পর পর্দা কেলেঙ্কারির ঘটনা দেশবাসীকে বিস্মিত করেছে বলে মন্তব্য করে বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান।
তিনি বলেছেন, ‘একটি বালিশকাণ্ডের কথা শুনে আমরা আশ্চর্য হয়েছিলাম। একটি বালিশ নিচতলা থেকে পাঁচতলা ওটাতে নাকি ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা খরচ হয়, এটি শুনেই আমরা আশ্চর্য হয়েছিলাম। এরপর আমাদেরকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে একটি পর্দার কেলেঙ্কারি, এটি দেশবাসীকে বিস্মিত করেছে। একটি পর্দার দাম নাকি ৩৭ লক্ষ টাকা হয় একটি বইয়ের মূল্য ৪ লক্ষ টাকা। এভাবেই বাংলাদেশের জনগণের করের টাকা লুটপাট করা হচ্ছে।’
মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর মালিবাগে এনডিপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলটির ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
ইরান বলেন, ‘আজকে এনডিপি যখন তাদের ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করছে তখন বাংলাদেশ একটি দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে। এখানে দুর্নীতির এমনভাবে প্রতিযোগিতা চলছে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ জায়গা থেকে শুরু করে সর্বনিম্নস্তর পর্যন্ত দুর্নীতি মহামারী রূপ নিয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘এই দুর্নীতির হাত থেকে দেশকে বাঁচাতে হলে আমাদের সর্বপ্রথম যে কাজটি করতে হবে সেটি হলো দেশমাতা বেগম খালেদা জিয়ার হাতকে শক্তিশালী করা। বিএনপি, জামায়াত, লেবার পার্টি, এনডিপিসহ সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে নামতে হবে। দেশমাতা বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। কারণ বেগম খালেদা জিয়ার ভাগ্য এদেশের ১৬ কোটি মানুষের ভাগ্যেরর সাথে একাকার।’
ইরান আরও বলেন, ‘বহু রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল কিন্তু দুঃখের বিষয় বাংলাদেশে এখন গণতন্ত্র নেই। নেই কথা বলার স্বাধীনতা। আজকে মানুষের বাকস্বাধীনতা ব্যক্তি স্বাধীনতার টুটি চেপে ধরা হয়েছে। একটি শাসক দল বিনা ভোটে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে আছে। যাদের অত্যাচার-নির্যাতনে সারাদেশের মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। বসবাসের অযোগ্য হয়ে উঠেছে স্বাধীন-সার্বভৌম এই বাংলাদেশ।
এনডিপির চেয়ারম্যান ক্বারী মো. আবু তাহেরের সভাপতিত্বে দলটির মহাসচিব শাহনেওয়াজ খান, কৃষক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার,কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, এনপিপির যুগ্ম-মহাসচিব ফরিদ উদ্দিন প্রমুখ

SHARE