আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে ভারত ও সুইজারল্যান্ড নিজেদের মধ্যে গ্রাহক অ্যাকাউন্টের তথ্য আদানপ্রদান করবে। ২০১৮ সালে যে সব অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, সে তথ্যও ভারত হাতে পাবে। তার আগে গত ২৯ ও ৩০ আগস্ট দু’দেশের আধিকারিকদের মধ্যে বৈঠক হয়। বিষয়টিকে কালো টাকার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বড় সাফল্য বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকে গচ্ছিত ভারতীয়দের গোপন অর্থের সমস্ত তথ্য হাতে পেয়ে যাবে আয়কর দফতর। রোববার থেকে এই ব্যবস্থা চালু হয়ে গেছে।
এতদিন পর্যন্ত নিজেদের ব্যাংকে কোনও ব্যক্তির অ্যাকাউন্ট থাকলে সেই প্রকাশ করত না সুইজারল্যান্ড। এমনকী অন্য দেশের নাগরিকদের ক্ষেত্রেও এই নিয়ম চালু ছিল। ফলে কালো টাকা গচ্ছিত রাখার স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়ে উঠেছিল সুইজারল্যান্ড। অভিযোগ, বহু ভারতীয় নাগরিকের কালো টাকা সুইজারল্যান্ড’এর ব্যাংকগুলিতে গচ্ছিত আছে। কিন্তু সেদেশের সরকারি নীতির কারণে এতদিন সেই তথ্যের নাগাল পেতেন না ভারতীয় আয়কর আধিকারিকরা। এই নিয়ম শিথিল করা নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে জুরিকের সঙ্গে আলোচনা চালাচ্ছিল দিল্লি। অবশেষে তাতে কাজ হয়েছে। সুইজারল্যান্ড’এর ব্যাংকিং ক্ষেত্রে গোপনিয়তার যুগের অবসান হতে চলেছে।
আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে ভারত ও সুইজারল্যান্ড নিজেদের মধ্যে গ্রাহক অ্যাকাউন্টের তথ্য আদানপ্রদান করবে। ২০১৮ সালে যে সব অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, সে তথ্যও ভারত হাতে পাবে। তার আগে গত ২৯ ও ৩০ অগস্ট দু’দেশের আধিকারিকদের মধ্যে বৈঠক হয়। স্যুইস প্রতিনিধিদলের সঙ্গে এই বৈঠকে রাজস্বসচিব এবি পান্ডে, সিবিডিটি চেয়ারম্যান পিসি মোডি-সহ ভারতীয় প্রশাসনের পদস্থ কর্তারা উপস্থিত ছিলেন।আস

SHARE